ওয়েবসাইটে ভিজিটর বেশি পাওয়া ও ভিজিটর ধরে রাখার কিছু গুরুত্বপূর্ণ কৌশল। - HintsInfo.Com
Breaking News
Home / Web Design & Development / ওয়েবসাইটে ভিজিটর বেশি পাওয়া ও ভিজিটর ধরে রাখার কিছু গুরুত্বপূর্ণ কৌশল।

ওয়েবসাইটে ভিজিটর বেশি পাওয়া ও ভিজিটর ধরে রাখার কিছু গুরুত্বপূর্ণ কৌশল।

ওয়েবসাইট থেকে বেশি আয়ের জন্য সবচেয়ে জরুরী বিষয়টি হলো ভিজিটর পাওয়া। তার চাইতে আরও কঠিন বিষয় হলো ভিজিটর ধরে রাখা। এমন অনেক নজির আছে যে, অনেক ব্লগসাইট বা ওয়েবসাইটের মালিকেরা একটি সময়ের জন্য কিছু ভিজিটর পেয়েছেন, কিন্তু আবার তারা ভিজিটর হারিয়েও ফেলেছেন। অবশেষে মাসিক বা বার্ষিক খরচ পোষাতে না পেরে সাইট বন্ধ করে দিয়েছেন। এর পিছনে নানা রকম কারণ থাকতে পারে। সাইটের মালিকদের উচিৎ এর ভিতরের কারণগুলো খুজে বের করা ও তা থেকে উত্তরণের উপায় বের করা। এই ধরনের এনালাইসিস করে তা সমাধান করতে পারলে পুরানো ভিজিটর ফিরে পাওয়া সম্ভব ও নতুন করে নিয়মিত ভিজিটরও পাওয়া সম্ভব।

ওয়েবসাইটে বেশি ভিজিটর পেতে ও ধরে রাখতে যে বিষয়গুলোর দিকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবেঃ
১) ইউনিক ও কোয়ালিটি কন্টেন্টঃ
ওয়েবসাইটে বেশি ভিজিটর পাওয়ার জন্য অন্য ওয়েবসাইট থেকে লেখা কপি পেষ্ট করলে আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর আসতেই থাকবে এটা হওয়ার মতো নয়। কারণ আপনার ওয়েবসাইটে আপনি যে লেখাগুলো অন্য সাইট থেকে কপি-পেষ্ট করেছেন, সেই লেখাগুলো হয়তো ভিজিটররা অনেক আগেই পড়ে ফেলেছে। সুতরাং ভিজিটররা আপনার সাইটকে পছন্দ করবে না। তাই এটাকে এড়িয়ে গিয়ে নিজের মতো করে, তথ্যভিত্তিক লেখা পোষ্ট করতে হবে। আপনি কম কম লেখেন সেক্ষেত্রে কোন সমেস্যা হবে না কিন্তু ভাল ও গুনগতমানসম্পন্ন এবং উনিক ও কোয়ালিটিমূলক লেখা লিখতে হবে। তাতে একবার যারা আপনার সাইটের লেখা পড়বে, তারা তাদের প্রয়োজনেই আপনার অন্য লেখাও পড়ার জন্য বারবার ফিরে আসবে, এটাই স্বাভাবিক।

২) এসইও(SEO) করাঃ
ওয়েবসাইট তৈরী করে  ভিজিটরদের কাছে পৌছে দেওয়ার সবচেয়ে ভালো উপায় হলো এসইও(SEO) অর্থাৎ সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন। SEO করলে আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইট ও এর লেখা সমূহ গুগলে খুজে পাওয়া যাবে। ভালো SEO করতে পারলে সহজে ও দ্রুত গুগলের প্রথম পাতায় আপনার ওয়েবসাইট ও এ লেখাসমূহ চলে আসবে। সুতরাং যে যত বেশি ভাল SEO করতে পারবে সে ততস বেশি ভিজিটর পাবে।

৩) সোস্যাল মিডিয়াতে বেশি পরিমান অডিয়েন্স তৈরী করতে হবেঃ
বিভিন্ন সোস্যাল মিডিয়া রয়েছে, যেমনঃ Facebook, Twitter, Google+, Linkedin সহ আরও বিভিন্ন সোস্যাল সাইট। এই সোস্যাল মিডিয়া সাইটগুলো খুব জনপ্রিয় এবং এখানে প্রতিদিন অসংখ্য ভিজিটর আসে। এখানে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য পেইজ, প্রোফাইল কিংবা গ্রুপ তৈরী করে সেখানে অডিয়েন্স বৃদ্ধি করতে হবে অর্থাৎ পেইজ এবং প্রোফাইলের লাইক বা ফলোয়ার বাড়াতে হবে এবং গ্রুপের সদস্য বাড়াতে হবে। তারপর এই সোস্যাল সাইট গুলো সহ অন্যান্য অনলাইন ভিত্তিক  জনপ্রিয় ফোরামগুলোতে আপনার ওয়েবসাইটের পোষ্ট গুলো শেয়ার করতে হবে।

৪) সোস্যাল মিডিয়াতে আপডেট দিতে হবেঃ
সোস্যাল সাইটগুলোতে অডিয়েন্স তৈরী অব্যাহত রাখতে হবে ও নিয়মিত ওয়েবসাইটের পোষ্ট গুলো শেয়ার করতে হবে। তাহলে সোস্যাল মিডিয়ার সাইটগুলো থেকেও আপনার ওয়েবসাইটে প্রতিদিন অনেক ভিজিটর আসবে। সোস্যাল মিডিয়াতে নিয়মিত যতবেশি অডিয়েন্স তৈরী হবে, ধীরে আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটরও বাড়তে থাকবে।

৫) ভিজিটর টার্গেট করে কন্টেন্ট তৈরী করতে হবেঃ
একই ওয়েবসাইটে বিভিন্ন রকম বা বিভিন্ন বিষয়ে না লেখাই বুদ্ধিমানের কাজ। কারন সব ভিজিটর সব রকম কন্টেন্ট পছন্দ করে না। তাছাড়া আপনার পক্ষে একই দিনে কি সব বিষয় নিয়ে লেখা লিখা ও সম্ভভ না। আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটে নির্দিষ্ট কোন বিষয়ভিত্তিক লেখা দিয়ে যদি সাইট তৈরী করেন তাহলে আপনার ওয়েবসাইটে ঐ এক ধরনের ভিজিটরই আসবে। যেমন উদাহরণঃ ধরুন আপনি শিক্ষা বিষয়ক একটি ওয়েবসাইট তৈরী করেছেন। তাহলে ভিজিটর’রা যখন দেখবে আপানার সাইটে শুধু শিক্ষা বিষয়ক লিখছেন, তখন তারা তাদের বিভিন্ন প্রয়োজনে আপনার সাইটকে বেছে নেতে পারে এবং শিক্ষা সম্পর্কিত যে কোন প্রয়োজনে আপনার সাইট থেকে ঘুরে আসবে।

সব মানুষের কাছে কি সব বিষয় পছন্দ হয়? কেউ পছন্দ করে ফ্যাশন, কেউ পছন্দ করে রূপচর্চা, কেউ খেলাধুলা, কেউ রাজনীতি, কেউ টেকনোলজি। সুতরাং মানুষের কাছে যে বিষয়টির চাহিদা বেশি সেই বিষয় নিয়ে ওয়েবসাইট তৈরী করলে মানুষ তাদের প্রয়োজনেই আপনার ওয়েবসাইটে বারবার ফিরে আসবে।

৬) ব্যাকলিংক করার চেষ্টা করতে হবেঃ
যতটা সম্ভব অন্য ওয়েবসাইটে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য ব্যাকলিংক করতে হবে। এবং অন্য ওয়েবসাইটের সাথে লিংক বিনিময় করতে হবে। ব্যাকলিংক করার বিভিন্ন ধরনের কৌশল আছে। কিভাবে ব্যাকলিংক করতে হয় সেটি অবশ্যই আপনাকে শিখতে হবে ও প্রয়োগ করতে হবে। যতবেশি ব্যাকলিংক করতে পারবেন আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর পাওয়ার সম্ভাবনা তত বেশি থাকবে।

৭) বিজ্ঞাপন দেওয়ার চেষ্টা করতে হবেঃ
সম্ভব হলে বিভিন্ন পর্যায়ে বিভিন্ন থার্ডপার্টি ওয়েব ভিত্তিক বিজ্ঞাপনী সংস্থায়, ও সোস্যাল মিডিয়াতে বিজ্ঞাপন দেওয়ার চেষ্টা করতে হবে। ওয়েবসাইট তৈরীর প্রথমদিকে বিজ্ঞাপন দিয়ে যদি কিছু ভিজিটরকে আকৃষ্ট করতে পারেন তবে পরবর্তীতে ধীরে ধীরে বিজ্ঞাপন ছাড়াই  আপনার সাইতে নিয়মিত ভিজিটর আসতে থাকবে।

About NuRe ALam

Check Also

ডোমেইন ও হোষ্টিং কেনার আগে যে ১০টি বিষয় অবশ্যই মাথায় রাখবেন!

ব্যক্তিগত ব্লগ বা কোম্পানির ওয়েবসাইট যাই তৈরি করেন না কেন ডোমেইন হোষ্টিং আপনাকে ব্যবহার করতেই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *